শিরোনাম
Home / অপরাধ / স্ত্রীর পুঁতে রাখা লাশ ভিডিওকলে খুঁজে দিলেন কানাডা প্রবাসী, ধামাচাপা দিতে সাধলেন ঘুষ

স্ত্রীর পুঁতে রাখা লাশ ভিডিওকলে খুঁজে দিলেন কানাডা প্রবাসী, ধামাচাপা দিতে সাধলেন ঘুষ

ঘোষণা ডেস্ক : কানাডায় পরিচয়। সেখানেই করেন বিয়ে। তবে কাবিননামা তৈরি করেন দেশে এসে। কাবিন ধরা হয় কোটি টাকা। এতে ক্ষুব্ধ হন স্বামী। এক পর্যায়ে তর্ক-বিতর্ক, দাম্পত্য কলহ। শেষ পর্যন্ত স্ত্রীকে হত্যা করে বাড়ির পাশের একটি স্থানে পুঁতে রেখে স্বামী চলে যান কানাডায়। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ তদন্তে নামে। তদন্ত কর্মকর্তা ‘কৌশলী’ হলে সেই কানাডা প্রবাসীই ভিডিও কলে বের করে দেন স্ত্রীর মরদেহ। এমনকি এক পর্যায়ে ওই লাশ বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে দিতে তদন্ত কর্মকর্তাকে নগদ ১৫ লাখ টাকা এবং তার দুই স্বজনকে কানাডায় নিয়ে যাওয়ার প্রলোভনও দেখান সেই প্রবাসী।

স্ত্রীকে হত্যার পর মরদেহ মাটিচাপা দিয়ে কানাডায় চলে যাওয়া এই ব্যক্তির নাম আশরাফুল আলম। তার বাড়ি রাজধানীর দক্ষিণখানের দক্ষিণ পাড়া সাহেব বাড়ি মোড়ে। হত্যাকাণ্ডের শিকার তার স্ত্রীর নাম আফরোজা আক্তার (৪২)। আশরাফুলের স্বীকারোক্তি অনুসারে, গত বুধবার রাত ১১টার দিকে তার বাড়ি থেকে আফরোজার মাটিচাপা দেয়া মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ ঘটনার রহস্য উন্মোচনের পর আফরোজার ভাই আরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে আশরাফুলসহ ৬ জনের নামে মামলা করেন। এ মামলায় আশরাফুলের বাবা, ভাই, ভাবী ও খালাসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আফরোজা ও আশরাফুল দুজনের কারোরই এটি প্রথম বিয়ে নয়। আফরোজার আগের সংসারে দুই মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। আশরাফুলেরও আগের সংসারে এক ছেলে আছে। আগের সংসারের এক মেয়েকে নিয়ে আড়াই মাস আগে আশরাফুলের সঙ্গে বাংলাদেশে আসেন আফরোজা। দেশে আসার পর তিনি স্বামীকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি নীলফামারীর ডোমার উপজেলায়ও যান। সেখান থেকে দক্ষিণখানের বাড়িতে ফেরার পর আফরোজাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন আশরাফুল। সেই মতে গত ২৬ মে বঁটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় আফরোজাকে। আর মাটিচাপা দেয়ার পরিকল্পনা সাজান কয়েকজন মিলে। ঘটনার দুদিনের মাথায় ২৮ মে আশরাফুল দেশ ত্যাগ করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দক্ষিণখান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোছা. রাজিয়া খাতুন বৃহস্পতিবার(১ জুন) সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, গত ২৯ মে বহুবার আফরোজাকে ফোন করে কোনো সাড়া না পেয়ে তার বাবা ও ভাই নীলফামারী থেকে ঢাকায় আসেন। পরে আফরোজার নিখোঁজের বিষয়ে তার ভাই আরিফুল ইসলাম দক্ষিণখান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডির তদন্ত করতে গিয়ে রহস্য উদঘাটন হয়।

এসআই রাজিয়া খাতুন বলেন, “৩০ মে জিডির দায়িত্ব পেয়ে আশরাফুলদের দক্ষিণখানের বাড়ি গিয়ে তার স্বজনদের জিজ্ঞাসাবাদ করি। তখন সবাই বলেন, তারা কিছুই জানেন না। তারা জানান, ছুটি শেষ হওয়ায় আশরাফুল কানাডায় চলে গেছেন। আফরোজা বনানীতে যাওয়ার কথা বলে বের হওয়ার পর থেকে তার সন্ধান তারা পাচ্ছেন না। এছাড়া মাঝে মাঝে তারা কয়েকজন আড়ালে গিয়ে চুপি চুপি কথা বলছিলেন। তাদের আচরণে সন্দেহ হয়। পরে আমি আশরাফুলের বাবার কাছে আফরোজার মোবাইলের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মোবাইল ও আফরোজার সন্তান অন্বেষাকে নিয়ে আমার ছেলে কানাডায় চলে গেছে’। এতে আমার সন্দেহ আরও বাড়তে থাকে। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আশরাফুলের বাবা আফরোজার ভ্যানিটি ব্যাগ বের করে দেন। ব্যাগ খুলে পাসপোর্ট, রেসিডেন্স কার্ড, ওয়ার্ক পারমিট ও জাতীয় পরিচয়পত্রসহ সবকিছুই পাওয়া যায়। আফরোজা বাইরে গেলে ব্যাগ নিয়ে গেলেন না কেন? আমার মনে প্রশ্ন জাগে এবং আমার সন্দেহ দৃঢ় হয়।”

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে রাজিয়া খাতুন বলেন, “এক পর্যায়ে আশরাফুলের খালা পান্না চৌধুরী (আইনজীবী) আমাকে বলেন, ‘যা হওয়ার হয়ে গেছে, এখন এদের বাঁচাতে হবে’। এ কথা বলে তিনি আমাকে তার ফোন থেকে হোয়াটসঅ্যাপে ভিডিও কলে কানাডায় আশরাফুলের সঙ্গে কথা বলিয়ে দেন। তখন আমার মোবাইল দিয়ে আমি সব কিছু রেকর্ড করি। সেসময় আশরাফুল আমাকে বলেন, ‘আপনি এই মরদেহ উদ্ধার করে বুড়িগঙ্গায় ফেলে দেবেন। কেউ যেন কিছু বুঝতে না পারে। আপনাকে নগদ ১৫ লাখ টাকা দেব এবং আপনার পরিবারে দুজনকে কানাডায় নিয়ে আসব’। পরে ওই বাড়ির সবাইকে ‘আপনাদের কিছুই হবে না, বিষয়টি আমি দেখব’ বলে আশ্বস্ত করে চলে আসি। এতেই আমার ওপর তাদের আস্থা অনেক বেড়ে যায়।”

রাজিয়া খাতুন বলেন, “পরদিন আশরাফুলের খালা ফোন দিয়ে আমাকে একা যেতে বলেন এবং আশরাফুল আমার সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানান। আমার টিম দূরে রেখে আমি একা যাই। ওখানে গেলে আশরাফুল কানাডা থেকে ফোন দিয়ে বলেন, ‘আপনি ভিডিও কলে আসেন, মরদেহ কোথায় আছে দেখিয়ে দিচ্ছি’। তখন আমার সঙ্গে কেউ ছিল না। আমি ভিডিও কল অন করি এবং রেকর্ড করতে থাকি। এ সময় আশরাফুল ভিডিও কলে আমাকে দিকনির্দেশনা দিয়ে গেট থেকে বের হয়ে বাম দিকে যেতে বলেন। এরপর একটি জায়গা দেখিয়ে আশরাফুল বলেন, ‘এখানেই আফরোজার মরদেহ পুঁতে রেখেছি’। বালি নরম থাকায় আমি কিছুটা খুঁড়তেই আফরোজার দেহের কিছু অংশ দেখতে পাই। তাৎক্ষণিক আমি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানাই। আমাদের টিমও ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায়। এরপর সিআইডির ক্রাইম সিনকে খবর দেয়া হয়।”

তদন্ত কর্মকর্তা জানান, ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আশরাফুল আলমের বাবা, ভাই, ভাবী ও খালাসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে আফরোজার বড় ভাই আরিফুল ইসলাম কানাডায় থাকা আশরাফুলসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেছেন। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Check Also

চাঁপাইনবাবগঞ্জে সামনে সেলাই মেশিন রেখে ছবি তুলে ফেরত নিলেন এলজিইডি প্রকৌশলী

ঘোষণা ডেস্ক : চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার বাসিন্দা মোসা. মিম আক্তার (২৪)। সংসারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে একটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *